Tagged: ভিডিও Toggle Comment Threads | Keyboard Shortcuts

  • ক্যাফে লাতে 7:44 am on October 26, 2013 Permalink | Reply
    Tags: ভিডিও,   

    মান্না দে, মেরি হপকিন্স, চায় টি ল্যাতে…আরো কত কি… 

    এই পোস্টের নাম হতে পারত-কত কি জানার আছে বাকি !! কিন্তু তার বদলে যে নাম দিলাম, সেটা দিয়ে পোস্টের বিষয় সম্পর্কে একটা আন্দাজ দেওয়ার মাত্র চেষ্টা করছি। বরেণ্য শিল্পী শ্রী মান্না দে পরলোকগমন করলেন দুই দিন আগে। সকলের দেখাদেখি ফেসবুকে অবশ্য সাহেবি কেতায় RIP লিখিনি, কিন্তু একজনের স্ট্যাটাস মেসেজ পড়ে ভাবলাম আমিও একটু ওনার গান শুনি। ইউটিউবে শুনতে গিয়ে নিজেই হাঁ – এই সমস্ত গান, এই হিন্দি গানটা…আরে ওই বাংলা গানটা…এটাও ওনার গাওয়া? – শুনতে শুনতে কেটে গেল বেশ অনেকটা সময়। তয়ারি মাঝে মনে পড়ল, এই কথাটা অনেকদিন ধরেই আড্ডাতে বলব ভাবছি, কিন্তু বলা হয়ে ওঠেনি। মান্না দে মহাশয়ের সবথেকে জনপ্রিয় গান বোধ হয় “কফিহাউজের সেই আড্ডাটা আজ আর নেই… ” – শিক্ষিত শহুরে বাঙালির পরতে পরতে এমনভাবে জড়িয়ে আছে এই গান, সে এক আকর্ষণ এড়ানো বেশ মুশকিল। তার খোদ প্রমাণ আমাদের এই ব্লগ।

    যে কারণে এই ভিডিওটা দেওয়া এবং এর প্রসঙ্গ তোলা, মেরি হপকিন্স নামের এক গায়িকার (তাঁর জীবনী এখানে দেওয়ার মানে নেই, উইকিপিডিয়াতে দেখে নিন) একটা গান আছে – once upon a time there was a tavern…” সেই গানের ভাবনার সাথে আমাদের কফিহাউসের আড্ডা গানের বড়ই মিল। দেশ-কাল-ধর্ম-বর্ণব্যতিরেকে মানুষের প্রাথমিক ভাবনা-ভাললাগা-প্রয়োজনীয়তাগুলি যে আদতে একই, সেটা প্রমাণ করে এই গান। মেরি হপকিন্সের সেই গানের লিঙ্ক দিলাম এখানেঃ

    এই প্রসঙ্গে একটা অন্য তথ্য দিয়ে শেষ করি। গতকাল একটা দারুণ ওয়েবসাইট খুঁজে পেয়েছি – এক তরুণ এবং তরুণী ভারতের চা-ওয়ালাদের নিয়ে গবেষণামূলক কাজ করছেন- ভারতের বিভিন্ন প্রান্তের চা-ওয়ালা, তাদের রেসিপি, চায়ের রকম ফের এবং প্রতিটি চা-ওয়ালার কাছ থেকে পাওয়া জীবনের বিভিন্ন অভিজ্ঞতা তাঁরা ধরে রাখছেন। তাঁদের এই বিষয়ে ওয়েবসাইট এবং ব্লগ আছে। সেখানে জানতে পারলাম বিদেশের কফি শপ গুলিতে নাকি “চায় টি ল্যাতে” বলে একটি পানীয় বিক্রি হয়, সেটি খুব জনপ্রিয়। সেটি আমাদের ভারতীয় “চায়” অর্থাৎ প্রচুর দুধ-চিনি-মশলা দেওয়া চায়ের একটা সংস্করণ, এবং সেটি তৈরি হয়ে প্যাকেটের গুঁড়ো দিয়ে। মানে ওই চাপা-দুধ গুঁড়ো হাবিজাবি সব একসাথে প্যাকেট কেটে গরম জলে মিশিয়ে দাও আর কি !! নামটা আমার বেশ পছন্দ হয়েছে , যদিও আমিও ওই এলাচ, দুধ এবং প্রচুর চিনি দেওয়া বস্তুটিকে চা বলে গন্যই করি না এবং পছন্দই করিনা। আগে জানতাম বিদেশীরা হোটেলে গিয়ে ইন্ডিয়ান কারি বলে এক ভজঘট বস্তু খেতে খুব পছন্দ করে। এই রাস্তা/ফুটপাথ/রেলস্টেশনের চা শীততাপনিয়িন্ত্রিত রেস্তোঁরাতে বসে খেতে কেমন লাগবে জানতে পারলে মন্দ হয় না !!

     
    • ক্যাপাচিনো 10:46 am on October 27, 2013 Permalink | Reply

      বাহ এ তো দারুন। হ্যাঁ, আমি তোমার সঙ্গে এই বিষয় এক মত। আমরা পুরানো সেই দিনের কথার দৌলতে ‘Auld Lang Syne’ এর কথা সবাই শুনেছি। বছর ছয়েক আগে যখন আমি স্কটল্যান্ড যাই তখন সেখানকার লোকগীতি শুনে মনে হয়েছিল খুঁজলে আরও অনেক মিল পাওয়া যাবে।

      চায়ের নতুন কথাটা আমিও এই প্রথম শুনলাম। কালটিভেট করে দেখতে হচ্ছে।

  • ক্যাফে লাতে 12:20 pm on August 24, 2013 Permalink | Reply
    Tags: বিজ্ঞাপন, ভিডিও,   

    পুলিশ এবং রাখী 

    আইডিয়া একটি নতুন বিজ্ঞাপন দিয়েছে ঃ পুলিশ এবং পাবলিকের মধ্যে ভালবাসা বাড়বে রাখী বন্ধনের মাধ্যমে। সত্যিই কি বাড়বে? কি মনে হয়?

     
  • ক্যাফে লাতে 3:26 am on May 12, 2013 Permalink | Reply
    Tags: , নিউ মার্কেট, ভিডিও, মুখতার আহমেদ   

    জনাব মুখতার আহমেদ 

    ইনি জনাব মুখতার আহ্‌মেদ। এস এস হগ মার্কেটে এনার একটা ছোট মশলাপাতির দোকান আছে। আমি এঁর দোকান এবং এঁকে মাত্র কয়েক মাস আগে আবিষ্কার করেছি – একটা দুষ্প্রাপ্য মশলার খোঁজ করতে করতে। এখন আমি নিয়মিত এনার কাছ থেকে মশলা কিনতে যাই। মোটামুটি যে সমস্ত মশলা সাধারণ ভাবে বাড়ির আশেপাশের দোকানে পাওয়া যায় না, সেই সমস্ত মশলাই ওনার দোকানে পাওয়া যায়। ওখানে এইরকম আরো দোকান আছে। আমি অবশ্য এই চাচার দোকান ছাড়া কোথাও যাই না।
    মুখতার চাচার কাছে যাওয়ার একটা প্রধাণ কারণ হল চাচার ব্যবহার। এত মিষ্টভাষী বিক্রেতা আজকালকার দিনে খুব কম দেখা যায়। যদি তুমি ওনার কাছ থেকে কাজু কিশমিশ কিনতে চাও, তাহলে কেনার আগেই বেশ কিছুটা ফ্রি-তে চেখে দেখতে পারবে। এমনকি না কিনলেও দুই এক টুকরো চেখে দেখতে পার। আমাদের নিতে খারাপ লাগে। একদিন ঠিক আছে, কিন্তু প্রতিদিন হলে একটু অস্বস্তি হয়। দামের কথা তুললে উনি বলবেন – “দেনেওয়ালা তো উপরওয়ালা হ্যায়, হম কৌন হোতে হ্যায় দেনেওয়ালে…” একটু বেশি পরিমাণে কেনাকাটা হলে একমুঠো তেজপাতা ফ্রি দিয়ে দেন।বলেন, “হর এক চীজ কা হিসাব নেহি লাগাতে…”
    এই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে চাচা আমাদের জন্য স্পেশাল আলুবোখরার হজমি বানাচ্ছেন – সেটাও ফ্রি 🙂 এখানে একটা কথা বলতে হবে, এখানকার বেশিরভাগ মশলা ওনার ঘরে পেষা হয়। বাকি জিনিষেরও গুণমান খুব ভাল। এই হজমি ওনার তৈরি স্পেশাল মশলা আলুবোখরাতে মাখিয়ে তৈরি করা হয়।
    উর্দুভাষায় একটা শব্দ আছে – ‘তেহজীব’…সেটার সমান্তরাল বাংলা শব্দ ঠিক হয় না। এই বেপরোয়া সম্ভ্রমশূণ্য সময়ে হারিয়ে যেতে বসা সেই তেহজীব এর উদাহরণ দেখা যাবে মুখতার চাচার ব্যবহারে – যা একান্তভাবেই এক আদর্শ মুসলিম বৈশিষ্ট।

     
    • ক্যাপাচিনো 6:18 am on May 12, 2013 Permalink | Reply

      চমৎকার পোস্ট। হগ মার্কেট বলেছো দেখে ফেলুদার কথা মনে পড়ে গেল। কদিন আগে আমি একটা কনটেস্টের জন্য ছবি তুলতে গিয়ে দেখি যে সেখানে ফটোগ্রাফি করা বারন আছে। তুমি তুললে কি করে? যাই হোক, আরেকটা সমস্যা হচ্ছে যে আমি ভিডিও দেখতে পাচ্ছি না। ক্লিক করলে ঝিলমিল করছে – বলছে ভিডিও নেই।

    • ক্যাফে লাতে 7:51 am on May 12, 2013 Permalink | Reply

      হুমমম, আমিও দেখলাম বলছে ভিডিও দেখা যাচ্ছে না। আবার শেয়ার করলাম, তারপরে আবার দেখা গেল।দেখ এখন দেখতে পাও কিনা। বুঝতে পারছি না আমি কোন স্টেপ ভুল করছি কিনা ভিডিও শ্যেয়ার করার সময়ে।

      ওই মার্কেটের ঢোকার গেটে এখনো হগ মার্কেটই লেখা আছে।তুমি যদি আমিনিয়া-নিজামের রাস্তা ধরে গিয়ে ঢোকো, তাহলে দেখবে গেট আছে – এস এস হগ মার্কেট লেখা।নিউ মার্কেটের আসল নাম তো হগ মার্কেটই।
      আর ভিডিও তুলেছি মোবাইলে। তোমার মত গোদা ক্যামেরা নিয়ে বাজার করতে যাব নাকি!! :hope

    • ক্যাপাচিনো 2:23 pm on May 12, 2013 Permalink | Reply

      হুম্ম, এইবার ভিডিও দেখা যাচ্ছে বটে – তবে কিনা দোকানটা কি করে খুঁজে পেতে হয় সেটাও একটু দেখালে পারতে?

      হ্যাঁ, গেট গুলোতে এখনও হগ মার্কেটই লেখা আছে বটে। মোবাইলে তোলা ভিডিও ভালোই হয়েছে।

    • ক্যাফে লাতে 3:29 am on May 13, 2013 Permalink | Reply

      দোকান খুঁজে পাওয়া সোজা। তুমি যদি এস-এন-ব্যানার্জি রোড থেকে কর্পোরেশনের রাস্তা দিয়ে ঢোকো, অর্থাৎ বাঁদিকে আমিনিয়া-নিজাম, ডান দিকে কর্পোরেশন অফিস…নাক বরাবর নিউ মার্কেটের দিকে এগিয়ে গেলে, কিন্তু নিউ মার্কেটের ভেতরে না ঢুকে, রাস্তাটা বাঁদিকে ঘুরে গেছে, সেই ধরে হাঁটতে থাকলে…দু-পা হাঁটলেই চোখে পড়বে ডানদিকে একটা পুরোনো গেট -এস এস হগ মার্কেট লেখা। সেটা দিয়ে ঢুকে পড় – গলির দুইপাশে সব দোকানই মুদিখানা/গ্রসারি গোছের। এই দোকানটা ডান হাতে পড়বে, প্রথম গোটা পাঁচেক দোকান ছেড়ে…

      • ক্যাপাচিনো 4:05 pm on May 14, 2013 Permalink | Reply

        আচ্ছা, তুমি যে দুষ্প্রাপ্য মশলাটা খুঁজতে গিয়েছিলে, সেটা কি ছিল?

      • দেশী ছেলে 6:44 am on May 5, 2014 Permalink | Reply

        মত প্রকাশে মক্তমঞ্চ http://barnaparichay.in/

    • ক্যাফে লাতে 12:12 am on May 15, 2013 Permalink | Reply

      হা হা হা …বলব কেন?? তুমি এই প্রশ্ন করছ কেন? তুমি কি রান্না করবে?…
      আমি কিরকম একটা ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছি…

    • চা পাতা 6:35 am on June 19, 2013 Permalink | Reply

      আচ্ছা, নিউ মার্কেটে কোথাও কচ্ছপের মাংস পাওয়া যায় কিনা কেউ বলতে পারবে?

    • ক্যাপাচিনো 12:45 pm on June 19, 2013 Permalink | Reply

      আমি যতদূর জানি এক সময়ে এমনি বাজারেই পাওয়া যেত – এখন অবশ্য পাওয়া যায় বলে মনে হয়। আইন করে বারন হয়ে গেছে।

c
Compose new post
j
Next post/Next comment
k
Previous post/Previous comment
r
Reply
e
Edit
o
Show/Hide comments
t
Go to top
l
Go to login
h
Show/Hide help
shift + esc
Cancel