Updates from March, 2013 Toggle Comment Threads | Keyboard Shortcuts

  • ব্ল্যাক কফি 9:59 pm on March 25, 2013 Permalink | Reply  

    ছোটবেলায় দেখেছি পুতুল নাচে একটা চরিত্র ”হোদল কুতকুত”,সেই হোদল কুতকুত সরকার চলছে এখন !!!
    :bingung:

     
    • ক্যাফে লাতে 11:14 pm on March 25, 2013 Permalink | Reply

      কেন, আবার কি হল??

    • ক্যাপাচিনো 9:35 am on March 26, 2013 Permalink | Reply

      হে হে :bingung: কি যে হবে এই দেশের এইসব না ভেবে এখন কেবল দেখতেই থাকি :tabrakan:

  • ক্যাফে লাতে 2:10 pm on March 25, 2013 Permalink | Reply
    Tags: শর্ট ফিল্ম,   

    জেরিস গেম -শর্ট অ্যানিমেশন 

    একটা অসাধারণ শর্ট অ্যানিমেশন দেখলাম পিক্সার স্টুডিওর – জেরিস গেম। দেখই একবার। মন ভরে যাবে দেখেঃ)

     
    • ক্যাফে লাতে 6:59 pm on March 29, 2013 Permalink | Reply

      এই শর্ট ফিল্মটা তোমরা কেউ এখনো দেখলে না? :nohope যাহঃ বাবা!!

      • ক্যাপাচিনো 3:51 am on March 30, 2013 Permalink | Reply

        ব্যাপক – ব্যাপক। কোন তুলনা নেই। সত্যিই মন ভরে গেল।

  • ক্যাফে লাতে 12:29 am on March 25, 2013 Permalink | Reply
    Tags:   

    ইমরান বাঁশীওয়ালা 

    শনিবার দুপুরে পার্ক স্ট্রীট অক্সফোর্ড বুক স্টড়ে গেছিলাম-ওরা ‘চৈত্র সেল ‘ দিচ্ছে কিনা, তাই। তা কিনলাম দুই এক টা পুরোনো বই, বেশ খানিকটা ডিসকাউন্টে। দোকানের ভেতরে থাকতে থাকতেই একটা মন পাগল করা বাঁশীর আওয়াজ পাচ্ছিলাম- সুন্দর সুন্দর হিন্দী গানের সুর তুলছিল কেউ। বাইরে বেরিয়ে দেখলাম এক বাঁশীওয়ালা। তার বাজানো শুনে এত ভাল লাগল, মোবাইলে তুলেই ফেললাম কিছুক্ষণ।

    ওর নাম ইমরান। ও বাঁশী বিক্রি করে। আর রোদে গলা পার্ক স্ট্রীটকে মাতাল করে তোলে ওর বাঁশীর সুরে।

     
    • ক্যাপাচিনো 12:43 am on March 25, 2013 Permalink | Reply

      এভাবে না দিয়ে ইউটিউব বা ইস্নিপ্স বা সাউন্ডক্লাউডে পোস্ট করে তারপর দিও, তাহলে বরং ভালো হবে। বাঁশি নিয়ে কিছু বলার নেই। আমাদের কফিবিনস ও ভালো বাঁশি বাজাতে পারে।

      • ক্যাফে লাতে 6:37 am on March 30, 2013 Permalink | Reply

        ইমরান বাঁশীওয়ালার ভিডিওটা ইউটিউবে দিলাম ক্যাপাচিনো।

    • ক্যাফে লাতে 2:13 pm on March 25, 2013 Permalink | Reply

      হ্যাঁ, সেইরকমটাই করতে হবে। কিন্তু ব্যাটা কফিবিন্‌স্‌টা গেল কোথায়? ওটাকে এবার কফির কেটলিতে চুবিয়ে ফোটাব :marah দেখাই পাওয়া যায়না ব্যাটার!!!

    • এসপ্রেসো 3:57 pm on March 25, 2013 Permalink | Reply

      :thumbup বাঁশি ভাল লাগল । ইমরান ও ক্যাফে লাতে দুজনকেই ধন্যবাদ । কলকাতা শহরটাকেও একটু দেখে নিলাম । কলকাতার এমন ভিডিও আরো থাকলে আপলোড করবেন প্লিজ ।

  • ক্যাফে লাতে 12:12 am on March 25, 2013 Permalink | Reply
    Tags:   

    ব্রেভ দেখলাম। ২০১২ সালে তৈরি অ্যানিমেশন ছবি।

    রাজকন্যা মেরিডার মা চান তাকে পাত্রস্থ করতে। কিন্তু মেরিডা চায় স্বাধীনতা। সে একজন দক্ষ ধনুর্বিদ, সে চায় ঘুরে বেড়াতে, শিকার করতে, অস্ত্রশিক্ষা জারি রাখতে। মা আর মেয়েতে জোরদার মন কষাকষি হয়। মেরিডা রেগে মেগে বাড়ি ছেড়ে চলে যায়। তার সাথে দেখা হয় এক ডাইনিবুড়ির। ডাইনিবুড়ির কাছে মেরিডা ওষুধ চায় মাকে বদলে দেওয়ার জন্য। যাদু ওষুধে কাজ দেয়। বদল ঘটে। কিন্তু সে এমন বদল, যা মেরিডা চায়নি।

    বাকিটা আর বলব না। ছবিটা ২০১২ সালে বেশ হইচই ফেলেছিল। আমি দেখার সময় পেলাম ২০১৩ তে এসে। বেশ ভাল লাগল দেখে। আমার অবশ্য অ্যানিমেশন ফিল্ম দেখতে সবসময়ই ভাল লাগেঃ)

     
    • ক্যাপাচিনো 12:17 am on March 25, 2013 Permalink | Reply

      অস্কারের দৌড়ে ছিল মনে হচ্ছে। দেখতে হচ্ছে তাহলে সিনেমাটা।

  • ক্যাফে লাতে 12:00 am on March 25, 2013 Permalink | Reply
    Tags:   

    যেখানে ভূতের ভয় 

    সন্ধেবেলা টিভিতে দেখলাম যেখানে ভূতের ভয়। অনেকদিন পরে বেশ ভাল লাগল একটা ছবি দেখে। শেষের গল্পটা অনবদ্য 🙂 কিন্তু একটা ছোট্ট সমস্যা আছে। তারিনীখুড়ো গল্প বলতে যান বালীগঞ্জের সরকার বাড়িতে।, সেই বাড়িতে যে ছেলেরা গল্প শোনে, তাদের নাম পল্টু, ন্যাপলা, গিটকিরিবা ফিটকিরি গোছের কিছু। সন্দীপ রায়ের কাছে আমার প্রশ্ন – এই গল্পটা ঠিক কোন সালের? মানে ভূতের তিনটে গল্প তো পঞ্চাশ-ষাট-সত্তর বছরের পুরোনো। কিন্তু ছবির আসল গল্পের সময় তো এই আজকের দিন, কারণ প্রথম দৃশ্যে তারিনীখুড়োর ট্রামের জানালা দিয়ে পেছনে পিজ্জা কর্নার আর তার সামনে দাঁড়িয়ে থাকা সারি সারি হোম ডেলিভারি বাইকগুলি দেখা যায়। কিন্তু আজকের যুগের কোন স্বচ্ছল পরিবারের ছেলের ডাকনাম পন্টু এবং/অথবা ন্যাপলা হয় কি? পল্টু হলেও হতে পারে, কিন্তু ন্যাপলা??? ন্যাপলা হল নেপাল শব্দের বিকৃত উচ্চারণ। আর আজকের দিনে কেউ নিজের ছেলের নাম নেপালচন্দ্র রাখে না। নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারেও রাখে না। আর পল্টুদের যা বাড়ি দেখানো হয়েছে, সেই বাড়ির ছেলের বন্ধু কোনদিন নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে আসবে না। ন্যাপলাকে দেখে মনেও হচ্ছেনা যে খুব অস্বচ্ছল পরিবার থেকে আসছে। মোট কথা, নামকরণ গুলো গোলমেলে হয়ে গেছে।ছেলেদের ডাকনামগুলো সময়াময়িক হওয়া খুব জরুরি ছিল। নাহলে আমার মত হাড় বজ্জার দর্শক ভ্রু কোঁচকাবেই!!
    আরেকটা বাজে তথ্যঃ পরিচালক পার্ক-সার্কাসের দিকে চলা ট্রাম দেখিয়ে বেমালুম বলে দিলেন বালিগঞ্জের দিকে যাচ্ছে 🙂

     
    • ক্যাপাচিনো 12:11 am on March 25, 2013 Permalink | Reply

      সন্দীপ রায় চিরকালই অঙ্কে কাঁচা। ভুলভাল করেই থাকেন। :cd তাই আর অবাক হলাম না।

      হ্যাঁ, তুমি যেটা বলছো, সেটা আমারও চোখে লেগেছে। তারিনিখুড়ো কাদের গল্প বলছেন – কখন বলছেন আর কোন সময়ের গল্প বলছেন, এটার মধ্যে একটা খাপছাড়া ভাব আছে। সত্যজিত রায়ের কোন সিনেমায় এই ব্যাপারটা কোন কালেই ছিল না – ছেলে ইস্কুল তো দূরে থাক, বাবার কাছেই ঠিক করে টিউশনটা নেয়নি বেশ বোঝা যায়।

      প্রথম গল্পটায় ভয় দেখানোর আরো জায়গা ছিল, যেটা পরিচালক নষ্ট করেছেন। পরের গল্পটা মোটামুটি। ওখানে সত্যিকারের বেড়াল ব্যবহার করার কি সমস্যা ছিল কে জানে। সিনেমটা শুধু উতরোল শেষের গল্পটার হাত ধরেই। তাই না?

      • ক্যাফে লাতে 12:20 am on March 25, 2013 Permalink | Reply

        হ্যাঁ, প্রথম গল্পটায় আরো ভয় দেখানো যেত। কিছুই দেখানো হয়নি আসলে। কি দেখে মিত্তিরমশাই মারা গেলেন চোখ খুলে, তা বোঝা গেল না। আর উনি বলেছিলেন, ভূত দিনের বেলা দেখা দায় না, কিন্তু উনি নিজে বেশ ভোরবেলায় দেখা দিলেন দিনের আলোয়ঃ)

        হ্যাঁ, বেড়ালটা যে কম্পুটার গ্রাফিক্সের কাজ সেটা বেশ বোঝা যাচ্ছিল, কারণ ওটার গড়নে গোলমাল ছিল। বেশ একটা গর্ভবতী ভাব। আজকাল বোধ হয় কিছু বোকা নিয়ম হয়েছে সেন্সর থেকে- জন্তুজানোয়ারদের ওপর অত্যাচার করা চলবে না গোছের, কারণ আজকাল সব ছবির শুরুতেই দেখতে পাই—- এই ছবিতে কোন প্রানী ব্যবহার করা হয়নি, সব সি-জি —এই গোছের লেখা।
        আর হ্যাঁ, ঐ টিউশনের ব্যাপারটা তুমি ঠিকই বলেছ। আমাদের তো এইসব বোধ বুদ্ধিগুলি তৈরিই হয়েছে অনেকটা সত্যজিৎ রায় পড়েপড়েই। তাহলে তাঁর ছেলের যে কেন হয়নি কে জানে। সত্যি বলতে গেলে ,’তারিনীখুড়ো’ ব্যাপারটাই তো গোলমেলে। কাকু, দাদু, মেসো, মামা এইসবের মধ্যে কিছু একটা বললে ব্যাপারটা অনেক স্বাভাবিক হত। :hoax2

        • ক্যাপাচিনো 12:29 am on March 25, 2013 Permalink | Reply

          আমার কিন্তু – কেন জানি না ছোটবেলায় মনে হত বা এখনও মনে হয় তারিনিখুড়োর গল্পগুলো একটু বড়দের জন্য। এই ন্যাপলা ট্যাপলা এরা একটু বয়ষ্ক গোছের লোকজন। তাই আমার সাথে ঠিক পরিবেষনাটুকু খাপ খায়নি, বরং চায়ের দোকানের আড্ডা হলে ব্যাপারটা জমত ভালো।

          হ্যাঁ, জন্তু জানোয়ারের প্রতি অত্যাচারের কথা এক – কিন্তু একটা বেড়াল চেয়ার থেকে নেমে চলে গেল এটুকু দেখাতে কি আর একটা বেড়াল ব্যবহার করা যেত না?

          • ক্যাফে লাতে 12:33 am on March 25, 2013 Permalink | Reply

            সন্দীপ রায়ের নির্ঘাত ‘আগন্তুক’ এর ভূত মাথায় চেপেছিল :ngakak

    • কফি বিনস 12:28 am on March 25, 2013 Permalink | Reply

      বাহ, ক্যফে লাতে বেশ ভাল লক্ষ্য করেছে। সন্দীপ রায় যা করেছেন অনেক করেছেন। ওনার কাছ থেকে এর থেকে বেশি আশা করাটা কি ঠিক? অনাথবাবুর ভয় গল্পতে যে গ্রামের মধ্যে দিয়ে রিক্সা যেতে দেখা গেছিল, শেষের ভূত-ভবিশস্যৎ গল্পতেও সেই একই গ্রামের মধ্যে দিয়ে রিক্সা গেল। সামান্য লোকেশান-এর দিকেই নজর নেই যেটা সাধারণ দর্শকরাই ধরে ফেলবেন। ডাক নামের সদ্ব্যবহার তো আরো অনেক খুঁটিনাটি ব্যাপার।

      • ক্যাফে লাতে 11:24 pm on March 25, 2013 Permalink | Reply

        বাবা, গ্রামটাকে খেয়াল করিনি তো!! তবে আমার আরেকটা জিনিষ বেশ আজগুবি লেগেছে। শেষ গল্পে বিয়ে হয়ে যাওয়ার পরে যখন ফুলশয্যা হতে যাচ্ছে, আর দাদু ভূত এসেছে নাতজামাই এর সাথে দেখা করতে, তার ব্যাকগ্রাউন্ডে একটা বেশ জমকালো ঠাকুরদালান দেখা যাচ্ছে। আমার মাথায় প্রশ্ন ঢুকেছিল- এই বাড়িটা কার? গোপিদুলাল কি খুঁজে পাওয়া মোহর দিয়ে একটা সাতমহলা বাড়ি কিনে ফেললেন? কিনে থাকলে সেটা কোথাও একটা উল্লেখ করা উচিত ছিল। কারণ ছবিতে যা বাকি বাড়িগুলি দেখানো হয়েছে, সেগুলি কোনটাই এই বাড়ির মত নয়।

        যাকগে আর বেশি ভেবে কি করব। অন্তত সেই ;নিশিযাপন’ এর মত বিরক্ত করেন নি, এইটাই যথেষ্ট।

    • ব্ল্যাক কফি 12:50 pm on March 25, 2013 Permalink | Reply

      ছবিটা আমিও দেখলাম, সন্দীপ রায়ের ছবি মানতে কষ্ট হলো ।

    • চা পাতা 5:35 am on June 9, 2013 Permalink | Reply

      আরে ধুর ধুর! ১টা সিনের সাথে পরের সিনের সামঞ্জস্য কিছু নেই! ৩-৩টে গল্পের শুরু থেকে শেষ-এর ঠিক আগে পর্যন্ত কোন ভয়ের ব্যাপার-স্যাপার নেই! সব গল্পেই ১টা “শেষ সিনে গিয়ে ভয় দেখিয়ে দোবো” ভাব! এক্কেরে জোলো পান্তা ভাট!

  • ব্ল্যাক কফি 11:10 am on March 24, 2013 Permalink | Reply  

    ভাইয়ের পকেটে করে আমার মোবাইলটা আজ কলকাতায় চলে গেল ! :cd

     
    • ক্যাপাচিনো 11:29 am on March 24, 2013 Permalink | Reply

      যাচ্চলে, এখন তবে কার পকেটে করে ফেরত আসবে?

      • ব্ল্যাক কফি 12:36 pm on March 24, 2013 Permalink | Reply

        সেটাই তো ভাবছি :bingung

        • ক্যাফে লাতে 12:02 am on March 25, 2013 Permalink | Reply

          ধর্মতলা থেকে ভল্‌ভো বাসে চাপিয়ে দে রে ক্যাপাচিনো :ultah ওখানে সর্বত্র যাওয়ার বাস পাওয়া যায়

          • ব্ল্যাক কফি 12:47 pm on March 25, 2013 Permalink | Reply

            তাহলে তোমরা ভেবে চিন্তে কিছু একটা করো ।

  • এসপ্রেসো 7:21 am on March 23, 2013 Permalink | Reply
    Tags: ম্যাজিক   

    ডায়নামোর ম্যাজিকগুলো আমার খুব ভাল লাগে । সাদামাটা এবং সুন্দর । তিনি নিজেও বেশ সাদাসিধে দেখতে, সাধারন ভাবে হাজির হন মানুষের সামনে । রাস্তা, ক্লাব, অনুষ্ঠানে ঘুরে ঘুরে ম্যাজিক দেখান ।

    [youtube]https://www.youtube.com/watch?v=iWAkpA3ddRs[/youtube]

     
    • ক্যাপাচিনো 12:55 am on March 24, 2013 Permalink | Reply

      বাহ, বেশ সহজ – সুন্দর ম্যাজিক তো। আরও কিছু পোস্ট কর সময় করে।

    • ক্যাফে লাতে 11:46 pm on March 24, 2013 Permalink | Reply

      বাহ, কি দারুণ। কতদিন ম্যাজিক শো দেখিনা। আমাদের ছোট বেলায় তো মাঝে মধ্যেই ম্যাজিক শোদেখা যেত। আজকাল নিয়নিত কোথাও হয় কি?

  • ক্যাপাচিনো 12:01 am on March 23, 2013 Permalink | Reply
    Tags:   

    অ্যালভিন অ্যান্ড দ্য চিপমাঙ্কস 

    বেশ মজার গল্পের সিরিজ এই ‘অ্যালভিন অ্যান্ড দ্য চিপমাঙ্কস’। তিন কাঠবিড়ালিকে নিয়ে গল্প – অ্যালভিন, সাইমন আর থিওডোর। চিপমাঙ্ক মানে যে কাঠবিড়ালিই কিনা তা অবশ্য আমি ঠিক জানি না – ভুল হলে কেউ শুধরে দিতে পার। তবে কিনা দেখে তাই ই মনে হয়েছে। তা এই তিনজনের বৈশিষ্ট হচ্ছে যে তারা গান গাইতে পারে। এই নিয়ে গল্প। অনেক দিন আগে এই সিরিজের প্রথম সিনেমাটি দেখেছিলাম। আজকে দেখলাম তৃতীয় পর্ব। অ্যানিমেশন নিয়ে কিছু বলার নেই। গল্পটাও বেশ মিষ্টি।

    দেখতে বসলে ওটা যাবে না – এইটুকুই বলতে পারি। এখন তোমাদের যা ইচ্ছে।

     
    • এসপ্রেসো 7:06 am on March 23, 2013 Permalink | Reply

      :2thumbup অ্যানিমেশনটি সত্যিই সুন্দর, আর কাঠবেড়ালিগুলোও খুব কিউট :thumbup:

      • ক্যাপাচিনো 12:57 am on March 24, 2013 Permalink | Reply

        সিনেমটা দেখো সময় করে। ভালো লাগবে বলেই মনে হয়

    • ক্যাফে লাতে 11:48 pm on March 24, 2013 Permalink | Reply

      এইটার নাম তো শুনিনি আগে। দেখতে হবে তাহলে। আমি অবশ্য নতুন আরেকটা ছবি দেখলাম।

    • ক্যাপাচিনো 12:02 am on March 25, 2013 Permalink | Reply

      কোন ছবি?

  • এসপ্রেসো 8:33 pm on March 22, 2013 Permalink | Reply
    Tags:   

    দুই বাংলায় যে ভাবে সমস্যা বাড়ছে তাতে করে সাধারন জীবন-যাপন করে টিকে থাকাটাই শক্ত হয়ে যাচ্ছে । মনে লয় মইরা যাই….. :hammer

     
    • ক্যাপাচিনো 5:14 pm on March 24, 2013 Permalink | Reply

      সাধারন মানুষের টিকে থাকা তো অসম্ভব হয়ে যাচ্ছে বটেই।

  • চাফি 5:24 pm on March 22, 2013 Permalink | Reply
    Tags: পশ্চিমবঙ্গ,   

    এইমাত্র শুনলাম – :bingung লোকসংখ্যা বাড়ছে বলে নাকি ধর্ষন বাড়ছে। প্রমান দর্শনীয়

     
    • এসপ্রেসো 8:27 pm on March 22, 2013 Permalink | Reply

      :cd

    • ক্যাপাচিনো 12:18 am on March 25, 2013 Permalink | Reply

      তাও ভালো উলটোটা বলেনি।

c
Compose new post
j
Next post/Next comment
k
Previous post/Previous comment
r
Reply
e
Edit
o
Show/Hide comments
t
Go to top
l
Go to login
h
Show/Hide help
shift + esc
Cancel