নাসা ও একটি হাইকু – আপডেট

কয়েকদিন আগে ক্যাপাচিনো একটা খবর দিয়েছিল – নাসার মঙ্গলগ্রহের বিশেষ প্রজেক্ট মাভেন (MAVEN -Mars Atmosphere and Volatile Evolution Mission ) নিয়ে। নাসা মাভেন নামের স্পেসক্রাফ্‌ট পাঠাচ্ছে গবেষণার জন্য। সেই মহাকাশযানের সাথী হতে পারে ছোটদের আঁকা ছবি আর বড়দের পাঠানো বার্তা। ছোটদের ছবি আঁকার প্রতিযোগিতা অবশ্য শেষ। কিন্তু বড়দের বার্তা পাঠানোর সুযোগ এখনো প্রায় মাস খানেকের বেশি সময় আছে। শর্ত একটাই- বার্তা হতে হবে হাইকুর মত – অর্থাৎ সংক্ষিপ্ত এবং ছিমছাম।
তা আমিও একটা হাইকু লিখে জমা দিলাম। তাতে মাভেন প্রোজেক্ট আমাকে একটা তাৎক্ষণিক সার্টিফিকেট ও দিয়েছে। এই হল আমার লেখা হাইকুঃ

O dear Red Planet !
earthlings’ future safe haven-
would you like to be?

পাঠানোর পরে বেশ হাল্কা একটা উত্তেজনা হচ্ছে। ভাবতেই কেমন লাগছে, একটা ডিভিডি ভর্তি হয়ে এই সমস্ত বার্তা আর ছবি মহাশূণ্যে পাড়ি দেবে। যদি এমন হয় – সত্যি সে ডিভিডির সংগ্রহ বুঝতে সক্ষম হল আরো কোন এক সভ্যতা, যাদের কথা আমরা জানিনা …এই নিয়ে বেশ খানিকটা কল্পণা করে একটা কল্পবিজ্ঞানের গল্পও হয়ত লিখে ফেলা যায় । কেউ লিখবে নাকি ?

তবে একটা কথা, আমি এটা বুঝেছি, কফিহাউজের আড্ডার মত , নাসাও কবিদের (বিশেষতঃ স্বঘোষিত কবিদের) সাঙ্ঘাতিক ভয় পায়। তাই বার্তার দৈর্ঘ্য হাইকুর মধ্যে সীমাবদ্ধ রেখে দিয়েছে 😀

আর হ্যাঁ, ক্যাপাচিনোকে থাঙ্কু। আমার তরফ থেকে ওর কাপে দুই চামচ বেশি ক্রিম দিয়ে দেওয়া হোক।