“ভারতরত্ন” শচিন।

সিদ্ধান্ত আগে হয়ে গেলেও আনুষ্ঠানিক ব্যাপারটা হল সবে মাত্র। তেন্ডুলকার ‘ভারতরত্ন’ হলেন। সম্ভবত এ সিদ্ধান্তে কারও কিছু বলার নেই, আর থাকবেও না কোন দিন।
এর মাসতিনেক আগে শচীন তেন্ডুলকরকে নিয়ে হৈ হৈ পড়ে গেছিল! ছেলে-বুড়ো সবাই যত রকম সম্ভব ভাল ভাল বিশেষন প্রয়োগ করে যাচ্ছিলেন। তা যাবেনই। দেশের উৎকৃষ্টতম খেলোয়াড়ের এ সমস্ত প্রাপ্যই ছিল।
সুনীল গাভাসকরও একজন খুব বড় খেলোয়াড়। তাঁরও ত তেন্ডুলকর সম্পর্কে বক্তব্য থাকতে পারে, এবং রেখেছেনও, আর এক যোগ্য খেলোয়াড় বিরাট কোহলি সম্পর্কে বলতে গিয়ে। গত ১/১১/১৩ তারিখের কাগজে দেখলাম।
গাভাসকর মনে করেন, কোহলিই হল ভারতীয় ক্রিকেটে সচিন, দ্রাবিড়, লক্ষণের যোগ্য উত্তরাধিকারী। নিশ্চয়ই। কিন্ত এঁদের ক্যাপটেন, যোগ্যতায় এঁদের সাথে এক পংক্তিতে থাকা, একসাথে নামোল্লেখের দাবিদার, কোনও অংশে এঁদের থেকে সামান্যও কম’ত ননই বরং কোন কোন ক্ষেত্রে বেশী যে সৌরভ গাঙ্গুলী, তিনি নামোল্লেখের যোগ্য পর্যন্ত হলেন না! ভারতীয় ক্রিকেটে এই নামটা ভুলতে গেলেও যে অনেকদিন সাধনা করতে হবে, তা কি কেউ কেউ ভুলে যাচ্ছেন ? অতঃপরম্‌ কিম্‌ আশ্চর্যম্‌।
মাননীয় গাভাসকর প্রদত্ত আরও একটা তথ্য জানাবার রয়েছে (এটা আমিও জানতাম, কিন্তু স্মৃতি দুর্বল বলে নিশ্চিত হতে পারছিলাম না, তাই আগে লিখতে সাহস করিনি)। গাভাসকরের উক্তি “—-আমার যত দুর মনে পড়ে,সচিন তাঁর প্রথম ওয়ান ডে সেঞ্চুরি পেয়েছিল ৮০-র কাছা কাছি ম্যাচ খেলার পর।—–“। সৌরভ এমন সুযোগ কখনও পেতেন ?
কি মনে হয়!