স্বচ্ছ স্বীকারোক্তি

ছোটবেলা থেকেই বেশ রোগা ছিলাম।
মা হয়ত বলল পাড়ার দোকান থেকে কিছু নিয়ে আসতে, ওমনি খালি পায়ে খালি গায়ে দৌড় লাগাতাম। পাড়ার বন্ধুরা ” করোপোরেশনের হেলথ অফিসার” বলে পেছনে লাগত! তার পর অনেকভাবে, যেমন খাওয়া দাওয়া (ভাল-মন্দ) বাড়িয়ে, ব্যায়াম, আসন করে (এ দু’কারনে ব্যায়ামবীর নীলমনি দাসের বাড়ি অব্দি ধাওয়া করেছি) বা নানা যোগীরাজের নানা উপদেশ বই পড়ে বা টেলিভিশন দেখে নিয়ম কানুন নিষ্ঠাভরে পালন করেও কিছু করা যায় নি, মানে ওজন এক কিলোও বাড়ানো যায় নি ! শেষে হাল ছেড়ে দিয়ে সাধারন কাজকর্মে মনোনিবেশ করে দিন কাটিয়ে দিয়ে বর্তমান অবস্থায় এসেছি!
আশ্চর্য্য ব্যাপার হল, গত বিশ-পঁচিশ বছর হল ওজন সেই ৬০ কিলোতেই আটকে আছে! কখনও সামান্য কমলেও (৫৮) ৬০-এর পর এক গ্রামও এগোয় নি!
কিন্তু এই বয়সে এসে, ওজন (৬০ কিলো) না বাড়লেও নিজের স্বাস্থ্য সম্পর্কে গর্ববোধ না করে আর থাকা যাচ্ছে না! আমার স্বাস্থ্য নাকি দারুনভাবে “মেনটেইন” করছি! নাকি আমার চেহারা দারুন “স্লিম আন্ড ফিট”। প্রশংসার বন্যা বয়ে যাচ্ছে চারিদিকে! এখনকার ট্রেন্ড হল বেশী ফ্যাট না থাকা, ওজন কম থাকা ইত্যাদি। এতে নাকি শরীরে কোন রোগ বাসা বাঁধে না, শরীর ফিট থাকে, এরকম আরও কত কি! সবাই ডায়েট কন্ট্রোল করে!
সান্ধ্য আড্ডাধারী সতীর্থেরা অবশ্য অনুযোগ করেন, “আর দু’চার কেজি বাড়াতেই পারেন, তাতে তেমন ক্ষতি হবে না।” আর আমার উচ্চতা অনুযায়ী ৬৫ কিলো হলে নাকি ভাল হত!
যেন হাতের মোয়া !
এটা যে আমার ক্ষমতার বাইরে(কোন কালেই কি ছিল?) কি করে বোঝাই!!